ঢাকায় পৌঁছেছে সিনোফার্মের ২০ লাখ ডোজ টিকা

দুই চালানে সাড়ে ৩ ঘণ্টার ব্যবধানে ঢাকায় পৌঁছেছে সিনোফার্মের ২০ লাখ করোনার টিকা। বাংলাদেশ বিমানের বিশেষ ২টি ফ্লাইটে এ করোনার টিকা হযরত শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়। প্রথম চালানটি আসে শনিবার (১৭ জুলাই) ১১টা ৩৫ মিনিটে। দ্বিতীয় চালানটি রোববার (১৮ জুলাই) রাত ৩টার দিকে আসে।

এর আগে চলতি মাসের শুরুতেই চীন থেকে ২০ লাখ ডোজ টিকা দেশে পৌঁছায়। চীনের সিনোফার্ম থেকে ৩ কোটি ডোজ টিকা কেনার চুক্তি করেছে সরকার। ধাপে ধাপে আসবে এ সব টিকা।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র তথ্য কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম জানান, চীন থেকে ২০ লাখ ডোজ টিকা ২টি পৃথক কনসাইনমেন্ট রাত ১১টা ৩৫ মিনিটে ঢাকার বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেছে। বাকি ১০ লাখ ডোজ টিকা রাত ৩টার দিকে পৌঁছাবে।

এর আগে শনিবার (১৭ জুলাই) স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (পরিকল্পনা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মীরজাদা সাবরিনা ফ্লোরা এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানান, চীন থেকে ২০ লাখ ডোজ টিকা ২টি পৃথক কনসাইনমেন্ট রাত ১১টা ৩৫ মিনিটে ঢাকার বিমানবন্দরে এসে পৌঁছেছে।

শনিবার (১৭ জুলাই) সন্ধ্যায় ঢাকায় নিযুক্ত চীনা দূতাবাসের ডেপুটি চিফ অব মিশন হুয়ালং ইয়ান তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে জানান, বাণিজ্যিকভাবে কেনা প্রথম চালানে ১০ লাখ ডোজ টিকা নিয়ে একটি উড়োজাহাজ ৬টা ৪৬ মিনিটে বেইজিং এয়ারপোর্ট ছেড়েছে। দ্বিতীয় চালানে বাকি ১০ লাখ ডোজ টিকা নিয়ে আরেকটি উড়োজাহাজ ৯টা ৪৫ মিনিটে বেইজিং এয়ারপোর্ট ছাড়বে।

দেশে এখন পর্যন্ত ১ কোটি ১১ লাখ ১২ হাজার ৮৫৫ জন মানুষ করোনা টিকার আওতায় এসেছে। এদের মধ্যে প্রথম ডোজ নিয়েছেন ৬৮ লাখ ১৩ হাজার ১৫০ এবং দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছেন ৪২ লাখ ৯৯ হাজার ৭০৫ জন।

এর মধ্যে অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকা কোভিশিল্ড নিয়েছেন দেশের ১ কোটি ১ লাখ ১৭ হাজার ৪৪১ জন মানুষ। চীনের সিনোফার্মের টিকা নিয়েছেন ৭ লাখ ৮৫ হাজার ৬৪৩ জন। ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা নিয়েছেন ৪৯ হাজার ৩১২ জন। আর মডার্নার টিকা নিয়েছেন ১ লাখ ৬০ হাজার ৪৫৯ জন। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এদিকে ১৯ জুন থেকে চীনের সিনোফার্মের টিকাদান শুরু হয়েছে। ঢাকার ৭টি কেন্দ্রে ফাইজার-বায়োএনটেকের টিকা নিয়েছেন ৪৯ হাজার ৩১২ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর জানায়, শনিবার বিকেল পর্যন্ত ১ কোটি ৬ লাখ ১ হাজার ৩৩৪ জন করোনা টিকার জন্য নিবন্ধন করেছেন।

Facebook Comments