ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলায় যা আছে

দ্রুতগতির মোবাইল নেটওয়ার্ক ৫জি ও ডিজিটাল বাংলাদেশের বিভিন্ন দিক তুলে ধরতে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলনকেন্দ্রে (বিআইসিসি) বৃহস্পতিবার এ মেলার উদ্বোধন করা হয়।
৫জি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে প্রযুক্তি খাতে যে ব্যাপক উন্নয়ন আনা যেতে পারে সে সম্ভাবনাই ফুটিয়ে তোলা হয়েছে এই মেলায়। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা (এআই), রোবোটিকস, আইওটিসহ প্রযুক্তির সব খাতকে ৫জি নেটওয়ার্কের মাধ্যমে কীভাবে আরও সামনে এগিয়ে নেওয়া যেতে পারে তার একটা ধারণা দেওয়া হয়েছে এতে।
মেলায় অংশ নিয়েছে দেশি ও বিদেশি ৮২টি ইন্টারনেট সেবাদাতা (আইএসপি) প্রতিষ্ঠান। ২৫টি স্টল, ২৯টি মিনি প্যাভিলিয়ন ও ২৮টি প্যাভিলিয়নে নিজেদের প্রযুক্তি প্রদর্শন করছে প্রতিষ্ঠানগুলো।
বর্তমান ৪জি মোবাইল নেটওয়ার্কের চেয়ে ৫জির গতি কয়েকশ গুণ বেশি। জেডটিই-এর প্যাভিলিয়নেও তার ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। ৫জি নেটওয়ার্কের গতি প্রদর্শনে একসঙ্গে ১৬টি ৪কে ভিডিও স্ট্রিমিং দেখানো হয়েছে এক পর্দায়। পর্দায় নেটওয়ার্কের গতি দেখানো হচ্ছিলো সেকেন্ডে প্রায় ৭০০ মেগাবিট, যেখানে দেশে বর্তমানে ৪জি নেটওয়ার্কের সর্বোচ্চ গতি সেকেন্ডে পাঁচ মেগাবিটেরও কম।
চায়না টেলিকমের সঙ্গে মিলে বিভিন্ন স্থানে পানির মান যাচাই এবং ওই স্থানের পানি বিপদ সীমার ওপর যাচ্ছে কিনা তা বের করতেও কাজ করছে জেডটিআই। মেলায় সেটিও প্রদর্শন করছে প্রতিষ্ঠানটি। বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলায় দর্শনার্থীদের মূল আকর্ষণ ছিল হুয়াওয়ের স্টলে রোবটের ফুটবল খেলা।
জেডটিই কর্পোরেশন বাংলাদেশ লিমিটেডের পণ্য সমাধান ব্যবস্থাপক মুবাশশিরুন নবী বলেন, “পানির মান যাচাইয়ের এই পুরো প্রক্রিয়াটি হচ্ছে রিয়েলটাইমে। আগে হয়তো বিভিন্ন জায়গার পানি সংগ্রহ করে তা ল্যাবে নিয়ে পরীক্ষা করা হতো। এতে অনেক বেশি সময় ব্যয় হতো। দ্রুতগতির ৫জি নেটওয়ার্কের কারণে এগুলো তাৎক্ষণিকভাবেই জানানো সম্ভব হবে।
৫জি নেটওয়ার্ক চালু হলে এই প্রযুক্তি আমাদের দেশে কীভাবে কাজে লাগানো যেতে পারে এমন প্রশ্নের জবাবে নবী বলেন, কৃষি খাতে এই প্রযুক্তি ব্যবহার করা যেতে পাতে। এ ছাড়াও বন্যার সতর্কবার্তা জানাতে পারে এই প্রযুক্তি।
প্রঞ্চম প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক প্রযুক্তি রোবোটিকস খাতে কেমন কার্যকর হতে পারে তা প্রদর্শনে প্যাভিলিয়নে রোবটের ফুটবল খেলা দেখিয়েছে হুয়াওয়ে। ছোট একটি রোবট ফুটবলে লাথি মেরে গোল করছে এমন প্রযুক্তি আগেও দেখা গেছে। কিন্তু এ ধরনের প্রযুক্তিতে রিয়েল টাইমে প্রচুর ডেটা স্থানান্তরের দরকার হয়। ৫জি নেটওয়ার্কের কারণে কাজগুলো অনেক দ্রুত করা সম্ভব, এমনটাই ভাষ্য প্রতিষ্ঠানটির।
ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলায় স্থান পেয়েছে নানা ধরনের রোবট। ৫জি প্রযুক্তির মাধ্যমে ভিআর স্কেটিং গেইমের ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে হুয়াওয়ের প্যাভিলিয়নে। তিন দিনের এই মেলায় বিভিন্ন স্টল ও প্যাভিলিয়নে ভার্চুয়াল রিয়ালিটি (ভিআর) এবং অগমেন্টেড রিয়ালিটির (এআর) অভিজ্ঞতাও নিতে পারবেন দর্শনার্থীরা।
এআর প্রযুক্তির মাধ্যমে পৃথিবীর অভ্যন্তরীণ ভাগ দেখানোর ব্যবস্থা রাখা হয়েছে প্রদর্শনীতে। দর্শনার্থীর হাতে দেওয়া একটি কিউব নাড়াচাড়া করলে চোখে দেওয়া ভিআর হেডসেটে তার প্রতিফলন দেখা যায়। মনে হয় যেন পৃথিবীটাই হাতে নেড়ে দেখছি। মেলায় অংশ নিয়েছে দেশের বিভিন্ন ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান। নিজেদের নেটওয়ার্কের সুবিধা এবং বিভিন্ন প্যাকেজ নিয়ে দর্শকদের জানাচ্ছেন এসব প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা।
ভার্চুয়াল প্রযুক্তির সাহায্যে পৃথিবীর অভ্যন্তর ভাগ দেখছেন এক নারী। ভার্চুয়াল প্রযুক্তির সাহায্যে পৃথিবীর অভ্যন্তর ভাগ দেখছেন এক নারী। শিশুদের জন্য জাপানভিত্তিক প্রোগ্রামিং এবং প্রকৌশল স্কুল স্টেমনের স্টলে দেখা গেছে খুদে দর্শকদের ভীড়। এখানে দেখানো হয়েছে শিশুদের বানানো বেশ কয়েকটি লেগো রোবট। এই রোবটগুলো নিজরেই তৈরি করে প্রোগ্রাম করেছে শিশুরা।
মেলায় বেড়াতে আসা ষষ্ঠ শ্রেণির শিক্ষার্থী সাদ তার অভিজ্ঞতা জানাতে গিয়ে বলেন,রোবটগুলো দেখে অনেক ভালো লেগেছে। আমিও এমন রোবট বানাতে চাই।
রবিউল ইসলাম নামের আরেক দর্শনার্থী বলেন,৫জি নেটওয়ার্কের গতি সত্যি বিস্ময়কর! শীঘ্রই এই প্রযুক্তি আমাদের দেশে কাজে লাগানো হোক এবং দেশ আরও এগিয়ে যাক এটিই আমাদের প্রত্যাশা।
বৃহস্পতিবার থেকে শনিবার পর্যন্ত চলবে দেশের প্রথম ডিজিটাল বাংলাদেশ মেলা। www.digitalbangladeshmela.org.bd ওয়েব লিংকে ঢুকে রেজিস্ট্রেশ করলে বিনামূল্যে মেলা দেখার সুযোগ পাবেন দর্শনার্থীরা। মেলায় প্রবেশমুখেও রেজিস্ট্রেশন করার ব্যবস্থা থাকবে।

Facebook Comments